বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর, ২০২২

নৌযোগাযোগ ও মেরিটাইম সহযোগিতা বাড়াতে বাংলাদেশ ও শ্রীলংকা একযোগে কাজ করছে : নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক
|  ২৩ নভেম্বর ২০২২, ২৩:৪২

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি বরেছেন, নৌযোগাযোগ ও মেরিটাইম সহযোগিতা বাড়াতে বাংলাদেশ ও শ্রীলংকা একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। 

আজ সচিবালয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার মধ্যে অনুষ্ঠিত এক  বৈঠকে প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।
বৈঠকে নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি এবং শ্রীলংকার সফররত পররাষ্ট্রমন্ত্রী  এম ইউ এম আলী সাবরি নিজ নিজ দেশের পক্ষে প্রতিনিধিত্ব করেন।
বৈঠকে তারা বাংলাদেশ এবং শ্রীলংকার মধ্যে কোস্টাল শিপিং এগ্রিমেন্ট এবং শ্রীলংকান শিপিং কর্পোরেশন ও বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের মধ্যে ফিডার সার্ভিসের জন্য স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) বিষয়ে  আলোচনা করেন।
প্রতিমন্ত্রী জানান, বাংলাদেশ এবং শ্রীলংকার মধ্যে কোস্টাল শিপিং এগ্রিমেন্ট বিষয়ে  বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে আলোচনা চলছে।
প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলাদেশ ও শ্রীলংকার মধ্যে নৌযোগাযোগ বৃদ্ধি ও মেরিটাইম সহযোগিতা সম্প্রসারণের মাধ্যমে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে সমৃদ্ধিশালী হওয়ার ব্যাপক সম্ভাবনা রয়েছে। এ উপলব্ধি থেকে উভয় দেশ পারস্পরিক সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো নির্ণয় করে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে। এ সম্ভাবনা এবং সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো নির্ধারণের জন্য উভয় দেশ প্রতিবছর একটি সচিব পর্যায়ের সভা আয়োজনের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।’ 
বাংলাদেশ এবং শ্রীলংকার মধ্যে সচিব পর্যায়ের প্রথম সভাটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়েছিল। দ্বিতীয় সভাটি কলম্বোয় অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও বৈশ্বিক মহামারী কোভিড-১৯-এর কারণে তা বিলম্বিত হয়েছে। দ্বিতীয় সভাটি শীঘ্রই কলম্বোতে অনুষ্ঠিত হবে।
বাংলাদেশ পক্ষ সকল দপ্তর বা সংস্থা, সংশ্লিষ্ট স্টেকহোল্ডারদের সাথে সভা করে এবং তাদের নিকট থেকে প্রাপ্ত মতামত এবং ইনপুট পর্যালোচনা করেছে। এসব বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে সংশ্লিষ্ট আইন এবং বিধি-বিধান পর্যালোচনা শেষে শ্রীলংকান পক্ষকে শীঘ্রই জানানো হবে। বৈঠকে জানানো হয়, শ্রীলংকান শিপিং কর্পোরেশন ও বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশনের মধ্যে ফিডার সার্ভিসের জন্য স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) বিষয়ে শ্রীলংকা বাংলাদেশ পক্ষের মতামতের বিষয়ে একটি রিভাইজড টেক্সট  প্রেরণ করেছে। এ এসওপি’র বিষয়ে মতামত প্রদানের জন্য নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় নৌপরিবহন অধিদপ্তর, বাংলাদেশ শিপিং কর্পোরেশন এবং চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়েছে। সংশ্লিষ্ট দপ্তর বা সংস্থা হতে মতামত পাওয়ার পর বাংলাদেশ পক্ষের টেক্সট চূড়ান্ত করে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে শ্রীলংকান কর্তৃপক্ষকে জানিয়ে দেয়া হবে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মোস্তফা কামাল এবং শ্রীলংকার হাইকমিশনার প্রফেসর সাধার্শন সেনেভিরতেœ এসময় উপস্থিত ছিলেন। এর আগে শ্রীলংকার সফররত পররাষ্ট্রন্ত্রী নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রীর সাথে তাঁর অফিস কক্ষে সাক্ষাৎ করেন। তারা পারস্পারিক স্বার্থসংশ্লিষ্ট দ্বিপক্ষীয় বিষয়াদি নিয়ে আলোচনা করেন। নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের সচিব এবং শ্রীলংকার হাইকমিশনার এসময় উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত